মাছ চাষ কৃষি তথ্য ও সার্ভিস-SUNDARBAN FARM -
গ্রাস কার্প মাছ চাষ

গ্রাস কার্প মাছ চাষ

গ্রাস কার্প মাছ চাষে যে বিষয়গুলো জেনে রাখা জরুরী তা আমাদের দেশের অনেক মাছ চাষিরাই জানেন না। কার্প জাতীয় মাছ দ্রুত বৃদ্ধি পায় ও খাদ্য নিয়ে তেমন চিন্তা করতে হয় না। পুকুর কিংবা ছোট জলাশয়ে কার্প মাছ সহজেই চাষ করে লাভবান হওয়া যায়। আজকের এ লেখায় আমরা জেনে নিব গ্রাস কার্প মাছ চাষে যে বিষয়গুলো জেনে রাখা জরুরী সেই সম্পর্কে

গ্রাস কার্প মাছ চাষে যে বিষয়গুলো জেনে রাখা জরুরীঃ


বাংলাদেশের নদী, খাল-বিল, জলাশয় ও পুকুরের অতিরিক্ত জলজ উদ্ভিদ, ঘাস, লতা-পাতা দমনের জন্য ১৯৬৬ সালে হংকং থেকে এই মাছটি প্রথম আমদানি করা হয়। পরবর্তীতে বিভিন্ন হ্যাচারীর মাধ্যমে দেশের প্রত্যন্ত চাষের পুকুরে মাছটি ছড়িয়ে পড়ে।

পুকুরের আগাছা, শৈবাল, তন্তু শেওলা, ঘাস, লতা-পাতা ও বিভিন্ন পেনা দমনে গ্রাসকার্পের কোন জুড়ি নেই। এই মাছটি মজুদ পুকুরে ২ থেকে ৩ শতকে ১০০ গ্রাম থেকে ২০০ গ্রাম সাইজের ১ টি করে পোনা মজুদ করলে ৬ মাসের মধ্যে ১ থেকে ১.৫ কেজি সাইজের হতে দেখা যায়।

একটি গ্রাসকার্প দৈনিক তার দেহের ওজনের ৪০ থেকে ৫০% পর্যন্ত ঘাস খেতে পারে, পূর্ণ বয়স্ক মাছগুলো দেহের ওজনের ৬০% থেকে ৭০% পর্যন্ত ঘাস খেতে দেখা যায়। এরা কিন্ত যেকোন মাছের সাথে প্রতিযোগিতা করে সম্পূরক খাদ্য খেতে সমান পারদর্শী।

গ্রাসকার্প প্রথমে লম্বায় বড় হতে থাকে, তারপর ৩ থেকে ৪ মাস বয়স পূর্ণ হওয়ার পরে আস্তে আস্তে শরীরের দিক দিয়েও মোটা হয়। শুধু ঘাস দিয়ে চাষ না করে দেহের ওজনের ১.৫% থেকে ২% করে সম্পূরক খাদ্যও প্রদান করতে হয়। তাহলে এ মাছ দ্রুত বেড়ে ওঠে।

গ্রাসকার্পের প্রিয় খাদ্যঃ


নরম জাতীয় যেকোন ঘাস (বিশেষ করে নেপিয়ার ঘাস), কলা পাতা, তন্তু শেওলা, এ্যাজোলা ও ক্ষুদি পেনা এবং যেকোন সম্পূরক খাদ্যই খেতে পছন্দ করে।

কার্প মাছে রোগ-বালাইঃ


পুকুরে যেকোন গ্যাস তৈরী হলে, অক্সিজেনের অভাব দেখা দিলে এই মাছ দ্রুত রোগে আক্রান্ত হতে দেখা যায়। এছাড়া শীতের সময় গ্রাসকার্প মাছের ক্ষতরোগ হতে দেখা যায়।

ডিম দেওয়ার সময়কালঃ


গ্রাসকার্প ২/৩ বছর বয়স হতেই ডিম দেওয়া শুরু করে। এরা প্রাকৃতিক ভাবে স্রোতস্বিনী নদীতে মে থেকে জুনের মধ্যে ডিম দিয়ে থাকে। তবে বাংলাদেশের নদীতে গ্রাসকার্প ডিম ছেড়েছে এমন খবর এখনো পাওয়া যায়নি।

তাই আমাদের কে কৃত্রিম ভাবে উৎপাদিত হ্যাচারীর পোনার উপর নির্ভর করতে হয়। গ্রাসকার্প পুকুরের জন্য খুবই উপকারি একটি মাছ তাই যেকোন মাছের সাথে ২ থেকে ৩ শতকে ১ পিচ করে গ্রাসকার্প চাষ করতে হবে। এতে করে মাছের পুকুর আগাছামুক্ত থাকবে।

    SUNDARBANFARM

    %d bloggers like this: