দেশি মুরগি কৃষি তথ্য ও সার্ভিস-SUNDARBAN FARM -
দেশি মুরগি পালন

দেশি মুরগি পালন

দেশি মুরগি পালন ও লাভজনক উপায় ও বাণিজ্যিকভাবে মুরগি পালনের কৌশল সম্পর্কে চলুন জেনে আসি ।আমার গ্রামে দেশি মুরগি লালন পালন করা হয় । Desi Murgi Palon বাংলাদেশের প্রতিটি গ্রামাঞ্চলে প্রায় প্রতিটি ঘরে ঘরে পালন করা হয়। তবে বিদেশি মুরগির তুলনায় এই দেশি মুরগির উৎপাদন ক্ষমতা কম। তাদের উত্পাদন ব্যয়ও খুব কম। তাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা অনেক বেশি।

তাদের মাংস ও ডিমের দাম বিদেশী মুরগির দ্বিগুণ হয়ে যায়, তাই চাহিদাও খুব বেশি। বাচ্চা  মুরগির মৃত্যুর হার বেশি এবং অপুষ্টির কারণে উত্পাদন খুব বেশি নয়। সুতরাং, আমরা যদি অল্প বয়সে বাচ্চা মুরগির মৃত্যুর হার হ্রাস করতে এবং পরিপূরক খাবার সরবরাহ করতে পারি, তবে আমরা দেশী মুরগীর থেকে দ্বিগুণ ডিম এবং মাংস উত্পাদন করতে পারব।

দেশি মুরগি পালনের কৌশলঃ-

দেশি মুরগির চাষ করে আয় বৃদ্ধি এবং পরিবারের পুষ্টি নিশ্চিত করতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখতে পারে। আমরা সবাই বলি দেশী মুরগির উৎপাদন কম। তবে বিভিন্ন পর্যায়ে বিশেষ লক্ষ্য এবং ব্যবস্থা গ্রহণের মাধ্যমে, দেশি মুরগির উৎপাদন দ্বিগুণ করা সম্ভব। দেশি মুরগি থেকে লাভজনক উত্পাদন পেতে বিভিন্ন কৌশল নিম্নে বর্ণনা করা হলঃ

গবেষণায় দেখা গেছে যে দেশী মুরগির ডিমের উৎপাদন বাড়ানো এবং বাজারে বিক্রি করার চেয়ে ৮-১২ সপ্তাহ বয়সে এগুলি বিক্রি করা বেশি লাভজনক। আপনাকে একবারে ১০ থেকে ১২ টি মুরগির এক সাথে লালন করতে হবে। যাই হোক, ১৫ থেকে ১৬ এর বেশি গ্রহণ করা সঠিক নয় কারন অনেক অসুবিধা হতে পারে।

প্রাথমিকভাবে, মুরগিকে কৃমিনাশক ওষুধ দেওয়ার পরে রানিক্ষেত রোগের টিকা দেওয়া উচিত। মুরগীতে যদি উকুন থাকে তবে তা মেরে ফেলা উচিত। প্রতিটি মুরগিকে প্রতিদিন ৫০ থেকে ৬০ গ্রাম হারে সুষম খাদ্য দেওয়া উচিত। আজকাল বাজারে লেয়ার মুরগির সুষম ডায়েট পাওয়া যায়। এটি ছাড়াও, অর্ধ-বন্ধ পদ্ধতিতে পালন করা হলে বেশি লাভ হয় ।

৮ থেকে ১০ টি মুরগির জন্য ১টি মোরগ দিতে হবে মুরগির সাথে অবশ্যই বড় মোরগ দিতে হবে , তানাহলে ডিম ফুটান যাবে না। ডিম পাড়া শেষ হলে মুরগি উমে আসবে। তারপরে আপনাকে ডিম দিয়ে বাচ্চা ফোটানোর ব্যবস্থা নিতে হবে। একবারে একটি মুরগির নীচে ১৩ থেকে ১৫টি ডিম দেওয়া যায়। খামার ধরণের বাঁশ, কাঠ, খড়,বিচালীর, পাল নারকেল সুপারি পাতাগুলি দিয়ে যতটা সম্ভব কম খরচে ঘর তৈরি করার ব্যবস্থা করতে হবে তাহলে লাভ বেশি হতেপারে ।

মুরগি ঘর তৈরি করার সময়, এটি সঠিক আকারের এবং পর্যাপ্ত আলো এবং বায়ু চলাচল রয়েছে কিনা সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। নির্মাণের পরে, ঘরটি সবচেয়ে নির্জন জায়গায় রাখতে হবে। তারপর আপনাকে ঘরের মেঝেতে ইট দিতে হবে। তাহলে ঘর টি দীর্ঘস্থায়ী হবে।

ফুটানোর ডিম সংগ্রহ ও সংরক্ষন :-

এটি আরেকটি প্রয়োজনীয় গুরুত্বপূর্ণ কাজ।মুরগিতে ডিম দেওয়ার পরে, ডিম সংগ্রহের সময়, একটি পেন্সিল দিয়ে ডিমের উপর তারিখটি লিখুন এবং এটি একটি শীতল জায়গায় সংরক্ষণ করুন। ডিম পাড়া শেষ হওয়ার সাথে সাথে মুরগি কুচিতে বসার জন্য তৈরী হয়ে যাবে। গরম মৌসুমে ডিম ৫থেকে ৬ দিন এবং শীতকালে ১০ থেকে ১২ দিনের ডিম ফোটানোর জন্য বাছাই করা উচিত।

 

দেশীয় মুরগি পালনের কৌশলঃ

আপনার মুরগির যত্ন নিতে হবে। খাবার ও জলের সাথে মুরগির সবসময় পাত্রে সামনে রাখুন যাতে তিনি চাইলে খেতে পারেন। মুরগির ওজন হ্রাস পাবেনা এতে করে বাচ্চাকে বড় করার পরেই আবার ডিম দেওয়ার প্রস্তুতি নেওয়া শুরু করবে।

ডিম দেওয়ার ৭ থেকে ৮ দিন পরে ডিম গুলি যদি রাতে আলোতে পরীক্ষা করার মাধ্যমে তা বুঝা যায় । তবে বাচ্চা জন্ম হবে না এমন ডিম গুলি সরিয়ে নিতে হবে এবং যে ডিম গুলি তে বাচ্চা দিবে তা সুন্দর করে গুছিয়ে দিতে হবে যাতে  করে মুরগি টি সুন্দর করে তাওয়া দতে পারে। তবে মুরগির যাতে কোন ব্যাঘাত না ঘটে সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে।

প্রতিটি ডিম দিনের মধ্যে কমপক্ষে ৫ থেকে ৬ বার উল্টিয়ে দিতে হবে তাহলে ডিম গুলো সুন্দর ভাবে তাপ পাবে এবং বাচ্চা ভালো হবে ।

ডিম ফুটে বিশেষত যখন বাতাসের আর্দ্রতা খুব গরম এবং ঠান্ডা থাকে
ইনস্টলেশন পরে 18-22 দিনের জন্য হালকা গরম জলে আঙুল ভিজিয়ে জল স্প্রে করুন
করতে হবে.

সম্পূর্ণ ডিম ফুটার পরে ৬ থেকে ৭ ঘন্টা মায়ের সাথে শিশুকে উম দেওয়া উচিত। এটার কারনে বাচ্চা গুলা শুকনো ও ঝরঝরে হবে। ছোট বাচ্চা কে মা মুরগি দেখা শোনা করছে কিনা সেদিক খিয়াল রাখতে হবে ।

রোগ সমহ্যঃ

১) রাণীক্ষেত রোগ ,
২) গামবোরা রোগ ,
৩) পুলোরাম রোগ ,
৪) বসন্ত রোগ ,
৫) ফাউল কলেরা রোগ ,
৬) হিট স্ট্রোক রোগ ,
৭) আমাশয় রোগ ইত্যাদি ,

বাচ্চা ও ডিম পাড়া মুরগির পরিচর্যাঃ-

মাকে গরম আবহাওয়ায় ৩-৪ দিনের এবং শীতকালে ১০ -১২ দিনের জন্য শিশুর সাথে থাকতে দেওয়া উচিত। তারপরে মুরগি নিজেই বাচ্চাকে ওম দেবে। এটির জন্য কৃত্রিম উম (ব্রুডিং) লাগবে না। এই সময় মা মুরগি কে ভালো খাবার খাওয়ানো উচিত। মা মুরগির খাবারের সাথে বাচ্চার খাবার ও এক সাথে খেতে দেওয়া উচিত তাহলে বাচ্চারা তাদের মায়ের সাথে খেতে শিখবে।
সঠিক সময় কালের পরে মুরগী কে ​​ছানা থেকে আলাদা করা উচিত। এই অবস্থায় শিশুকে কৃত্রিম ব্রুডিং এবং খাবার দেওয়া উচিত। তার পর থেকে শিশু লালন-পালনের ব্যবস্থা অনুসরণ করতে হবে। মা মুরগি আলাদাভাবে খাওয়ানো উচিত। এই মুহুর্তে, মাদার মুরগিকে দ্রুত সুস্থ হওয়ার জন্য পানিতে দ্রবণীয় ভিটামিন দেওয়া উচিত।

মুরগী ​​এবং ছানাগুলি এমনভাবে পৃথক করা উচিত যাতে তারা দৃষ্টির শক্তির বাইরে থাকে । এমনকি শিশুর চটকদার শব্দটি যেন মা মুরগি শুনতে পায় না। অন্যথায় মা ও শিশুকে ডাকার জন্য কেউ কিছু খাবে না বা পান করবে না। যদি আপনি বিচ্ছেদের পরে পরিস্থিতির সাথে মানিয়ে নেন তবে কোনও সমস্যা নেই।

প্রতিটি মুরগিকে এই সময় ৮০ থেকে ৯০ গ্রাম পুষ্টি কর খাবার দেওয়া উচিত। একই সাথে ৫ থেকে ৬ ঘন্টা চরাতে দেওয়া উচিত। কৃমির ওষুধ প্রতি ৩ থেকে ৪ মাস এবং প্রতি ৪ থেকে ৫ মাস পরপর আর. ডি. ভি . টীকা অবশ্যই দিতে হবে। দেশে একটি মুরগি ডিম দেওয়ার জন্য ২০ থেকে ২৫ দিন সময় নেয়। ডিম থেকে বাচ্চা ফোটতে ২১ দিন সময় লাগে। একটি শিশু বড় হতে ৯০ থেকে ১২০ দিন সময় লাগে।

ডিম থেকে উত্থাপনের ৯০ থেকে ১২০ দিন পর্যন্ত দেশীয় মুরগির উত্পাদন চক্র সম্পূর্ণ করতে সাধারণত ১৩০ থেকে ১৫০ দিন সময় লাগে। তবে মাকে শিশুর থেকে আলাদা করার ফলস্বরূপ, এই উত্পাদন চক্রটি ৬০ থেকে ৭০ দিনের মধ্যে শেষ হয়। বাকি সময় মুরগি ডিম দেওয়ার জন্য ব্যবহার করা যেতে পারে। এই রাখার পদ্ধতিটিকে ক্রিপ ফিডিং বলা হয়।

ক্রিপ ফিডিং কিঃ-

ক্রিপ ফিডিং পদ্ধতিতে বাচ্চা বাড়ার ক্ষেত্রে মা মুরগিকে পালনের জন্য খুব বেশি সময় প্রয়োজন হয় না। ফলস্বরূপ,মা মুরগি টী ডিম দেওয়ার জন্য আরও বেশি সময় দিতে পারে। এই পদ্ধতিটি বাচ্চা ফুটার সংখ্যা বাড়িয়ে তোলে। দেখা গেছে যে শিশু মৃত্যুর হার অনেক কম হয়। সাধারণভাবে, আপনি বিভিন্ন উপায়ে উপকৃত হতে পারেন। এই পদ্ধতিটি বর্তমানে অনেকে ব্যবহার করছেন এবং উপকৃত হচ্ছে ।

 


দেশি মুরগি পালন প্রশিক্ষণ ,দেশি মুরগি পালনে সফলতা ,দেশি মুরগি পালনে আয় ব্যয় ,দেশি মুরগি পালনে সাফল্য ,দেশি মুরগি পালনের পদ্ধতি ,দেশি মুরগি পালন পদ্ধতি ,দেশি মুরগি পালন করার পদ্ধতি ,দেশি মুরগি পালন করার নিয়ম ,আবদ্ধ অবস্থায় দেশি মুরগি পালন ,দেশি মুরগি পালনের আধুনিক পদ্ধতি ,আধুনিক পদ্ধতিতে দেশি মুরগি পালন ,www.দেশি মুরগি পালন ,দেশীয় মুরগি পালন ,উন্নত পদ্ধতিতে দেশি মুরগি পালন,প্রাকৃতিক উপায়ে দেশি মুরগি পালন , উন্নত জাতের দেশি মুরগি পালন ,উন্নত পদ্ধতিতে দেশি মুরগি পালন pdf ,ছাদের উপর দেশি মুরগি পালন ,

দেশী মুরগি পালন , দেশি মুরগি পালনের নিয়ম ,দেশী মুরগী পালনের কৌশল ,দেশি মুরগি কিভাবে পালন করবে ,দেশি মুরগি পালন খাবার ,দেশি মুরগি পালন খামার ,দেশি মুরগি পালনে খরচ ,দেশি মুরগি খামারে পালন পদ্ধতি ,দেশি মুরগি খাচায় পালন ,দেশি জাতের মুরগি পালন ,ডিমের জন্য দেশি মুরগি পালন ,দেশি মুরগি পালন বই ডাউনলোড ,ডিম পাড়া দেশি মুরগি পালন ,দেশি মুরগি পালন নিয়ম ,দেশী মুরগি পালন পদ্ধতি ,

দেশি মুরগির পালন পদ্ধতি ,দেশী মুরগী পালন পদ্ধতি ,দেশি মুরগি পালন ব্যবসা ,দেশি মুরগির বাচ্চা পালন ,দেশি মুরগীর বাচ্চা পালন ,দেশী মুরগীর বাচ্চা পালন ,বাণিজ্যিকভাবে দেশি মুরগি পালন ,বানিজ্যিক ভাবে দেশি মুরগি পালন ,বাণিজ্যিক ভাবে দেশি মুরগি পালন ,মুরগি পালন দেশি মুরগি পালন ,কিভাবে দেশি মুরগি পালন করা যায় ,দেশি মুরগি পালন রোগ প্রতিরোধ ,দেশি মুরগি পালন লাভ ,দেশী মুরগী পালনে লাভ ,লাভজনক দেশি মুরগি পালন পদ্ধতি ,দেশি মুরগি কিভাবে পালন করা হয় ,desi murgi palon ,

 

    SUNDARBANFARM

    %d bloggers like this: