রানিক্ষেত রোগ কৃষি তথ্য ও সার্ভিস-SUNDARBAN FARM -
মুরগির রানিক্ষেত রোগ লক্ষণ ও প্রতিকার

মুরগির রানিক্ষেত রোগ লক্ষণ ও প্রতিকার

রানীক্ষেত ভাইরাসজনিত রোগ। রানীক্ষেত রোগ টি (Ranikhet disease ) ফার্মের অনেক বড় ক্ষতিকারক রোগ। সংক্রামিত মুরগি শ্বসন, হজম এবং স্নায়বিক রোগের লক্ষণ গুলি দেখায়। আমাদের দেশে শীত এবং বসন্ত কালে প্রাদুর্ভাব আরও বেশি দেখা যায় বলে মনে হয়।

সাধারণভাবে, যে কোনও বয়সের বা জাতের মুরগি সংক্রামিত হতে পারে তবে তুলনামূলক ভাবে কম মুরগি এই রোগে বেশি আক্রান্ত হয়।

কীভাবে রোগ ছড়ায়ঃ

এই রোগটি লালা, লালা, সর্দি, কাশি এবং আক্রান্ত মুরগির মল মাধ্যমে দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে। রোগের জীবাণু সংক্রামিত মুরগি বা খামার থেকে বাতাসের মাধ্যমে কাছের স্বাস্থ্যকর মুরগি বা খামারে ছড়িয়ে যেতে পারে। এই রোগটি সাধারণত আক্রান্ত ফার্মের আসবাব, যন্ত্রপাতি, যানবাহন বা লোকজনের মাধ্যমে স্বাস্থ্যকর খামার মুরগীতে সংক্রামিত হয়।

লক্ষণঃ

  • তীব্র সংক্রমণের ক্ষেত্রে ।
  • মাঝারি সংক্রমণের ক্ষেত্রেঃ
  • ক্ষুদ্র সংক্রমণের ক্ষেত্রেঃ

তীব্র সংক্রমণের ক্ষেত্রেঃ

খুব মারাত্মক সংক্রমণের লক্ষণগুলি ভেলোজেনিক স্ট্রেনের কারণে ঘটে। এই ধরনের সংক্রমণের ক্ষেত্রে, সংক্রামিত মুরগির লক্ষণ গুলি শুরুর আগেই মারা যেতে পারে। লক্ষণগুলির মধ্যে রয়েছে মুরগির পক্স, কুঁচকানো মাথা, পাতলা সাদা মল, মাথার চারপাশে জল জমে যাওয়া, নার্ভাস ভেঙে যাওয়া ইত্যাদি। ডানা নীচের দিকে ঝুলে পড়ে এবং হঠাৎ লাফ দিয়ে মুরগী মারা যায়।এর মৃত্যুহার ১০০% পর্যন্ত পৌঁছাতে পারে ।

মাঝারি সংক্রমণের ক্ষেত্রেঃ

মাঝারি সংক্রমণের লক্ষণ গুলি মেসোজেনিক স্ট্রেনের কারণে ঘটে। সংক্রামিত মুরগি মারাত্মক শ্বাস প্রশ্বাস জনিত জটিলতা এবং স্নায়বিক লক্ষণ গুলি (ঘাড়ের মোড়, পক্ষাঘাত, ডানা গুলি ঝুলে যাওয়া) বিকাশ ঘটে। শ্বাসকষ্টের সময় অনেক সময় দুরন্ত শব্দ হয় বা মুরগির শ্বাস নিতে সমস্যা হয়।

অনেক সময় শেল বা পাতলা খোসা ছাড়াই ডিম দেওয়া এবং পরে ডিম দেওয়া পুরোপুরি বন্ধ হয়ে যায়। গ্যাস্ট্রোইনটেস্টাইনাল সংক্রমণের ক্ষেত্রে চুনের মতো সাদা মল রয়েছে। মরতার হার ৮০% -৯০% হতে পারে।

ক্ষুদ্র সংক্রমনের ক্ষেত্রেঃ

অপেক্ষাকৃত কম সংক্রামক লেন্টোজেনিক ষ্ট্রেন দ্বারা আক্রান্ত হলে মৃদু আকারের শ্বাস কষ্ট জনিত লক্ষণ প্রকাশ পায়।

প্রতিরোধেঃ

প্রতিরোধের সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য উপায় হ’ল ভ্যাকসিন বা টিকা দেওয়া। চিকিৎসা দ্বারা ভাইরাস জনিত রোগ নিরাময় সম্ভব নয়।

চিকিৎসাঃ

এই রোগের চিকিৎসা দ্বারা রোগ নিরাময় সম্ভব নয়।

আপনারা ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণ রোধ করার জন্য নিচের যে কোন একটি এন্টিবায়োটিক ঔষধ ব্যবহার করা যেতে পারে এতে আপনার মুরগি ভালো হতে পারে।

ঔষধঃ

  • Cotra-Vet Powder (কট্রা-ভেট পাউডার)
  • অথবা Enflox-Vet Solution (এনফ্লক্স-ভেট সলিউশন)
  • অথবা Moxacil-Vet Powder (মোক্সাসিল-ভেট পাউডার)
  • অথবা Genacyn-Vet Injection (জেনাসিন-ভেট ইনজেকশন)
  • Electromin Powder (ইলেকট্রোমিন পাউডার)
  • Cevit-vet Powder (সিভিট-ভেট পাউডার)

    SUNDARBANFARM

    %d bloggers like this: