কৃষি তথ্য ও সার্ভিস-SUNDARBAN FARM -
মূলা চাষ পদ্ধতি

মূলা চাষ পদ্ধতি

মূলা একটি শীতকালীন সবজি । মূলত এই সবজিটি শীতকালে চাষাবাদ করা হয়। চাষাবাদ করার ক্ষেত্রে কতগুলো ধাপ অতিক্রম করতে হয় তার মধ্যে অন্যতম হল সার প্রয়োগ ও রোগ ব্যবস্থাপনা।

বীজ হার ও বপনঃ


আশ্বিন থেকে কার্তিক মাসের মধ্যেই অধিকাংশ মূলার বীজ বপন করা হয়। প্রতি হেক্টরে বপনের জন্য ২.৫-৩.০ কেজি বীজের প্রয়োজন হয়। সাধারণতঃ ছিটিয়ে বীজ বপন করা হয়। তবে সারিতে বপন করলে পরিচর্যার সুবিধে হয়। সারিতে বুনতে হলে এক সারি থেকে আর এক সারির দূরত্ব দিতে হবে ২৫-৩০ সেমি.।

সারের মাত্রাঃ

সারের নাম                                                                    সারের পরিমাণ

প্রতি শতকে প্রতি হেক্টরে
ইউরিয়া                                                           ১.২-১.৪ কেজি ৩০০-৩৫০ কেজি
টি এস পি                                                        ১.০- ১.২ কেজি ২৫০-৩০০ কেজি
এমওপি                                                          ০.৮৫-১.৪ কেজি ২১৫-৩০০ কেজি
গোবর                                                                     ৩২-৪০ কেজি ৮-১০ টন

সার প্রয়োগ পদ্ধতিঃ


জমি তৈরির সময় সবটুকু জৈব সার, টিএসপি ও অর্ধেক এমওপি সার মাটির সাথে মিশিয়ে দিতে হবে। ইউরিয়া ও বাকি অর্ধেক এমওপি সার সমান ২ কিস্তিতে ভাগে ভাগ করে বীজ বপনের পর তৃতীয় ও পঞ্চম সপ্তাহে ছিটিয়ে সেচ দিতে হবে। মূলার বীজ উৎপাদন করতে হলে জমিতে অবশ্যই বোরন সার হিসেবে বোরিক পাউডার/বোরক্স ব্যবহার করতে হবে। প্রতি হেক্টরে ১০-১৫ কেজি বোরিক এসিড/বোরাক্স দিলেই চলে।

পরিচর্যাঃ


বীজ বপনের ৭-১০ দিন পর অতিরিক্ত চারা তুলে পাতলা করে দিতে হবে। ৩০ সেমি. দূরত্বে একটি করে চারা রাখা ভালো। মাটিতে রস কম থাকলে সেচ দিতে হবে। প্রতি কিসি-র সার উপরি প্রয়োগের পর পরই সেচ দিতে হবে। আগাছা পরিষ্কার করে দিতে হবে। মাটি শক্ত হয়ে গেলে নিড়ানী দিয়ে মাটির উপরের চটা ভেঙ্গে দিতে হবে।

পোকামাকড় ব্যবস্থাপনাঃ


অনেক সময় মূলা পাতার বিট্‌ল বা ফ্লি বিট্‌ল পাতা ছোট ছোট ছিদ্র করে খেয়ে ক্ষতি করে। এ ছাড়া করাত মাছি বা মাস্টার্ড স’ফ্লাই, বিছা পোকা ও ঘোড়া পোকা পাতা খায়। বীজ উৎপাদনের সময় ক্ষতি করে জাব পোকা।

রোগ ব্যবস্থাপনাঃ


মূলা পাতায় অল্টারনারিয়া পাতায় দাগ একটি সাধারণ সমস্যা। এছাড়া হোয়াইট স্পট বা সাদা দাগ রোগও দেখা যায়।

ফসল সংগ্রহ ও ফলনঃ


মূলা শক্ত হয়ে আঁশ হওয়ার আগেই তুলতে হবে। অবশ্য এখন হাইব্রিড জাতসমূহ আসাতে এ সম্ভাবনা অনেক কমে গেছে। তবুও কচি থাকতেই মূলা তুলে ফেলতে হবে। এতে বাজার দাম ভাল পাওয়া যায় এবং স্বাদও ভাল থাকে। জাতভেদে হেক্টও প্রতি ফলন হয় ৪০-৬০ টন।

    SUNDARBANFARM

    %d bloggers like this: