উদয়পদ্ম - কৃষি তথ্য ও সার্ভিস-SUNDARBAN FARM কৃষি তথ্য ও সার্ভিস-SUNDARBAN FARM উদয়পদ্ম

উদয়পদ্ম

৳ 0

Out of stock

প্রোডাক্ট নং-১১৯৩০

Call-01842-186969-096413-186969

নাম : উদয়পদ্ম

খবরটি বেশ উদ্যাপন করার মতোই। রমনা পার্কে প্রথমবারের মতো ফুটেছে দুলিচাঁপা। সপ্তাহ খানেক আগে খবরটি জানিয়েছেন অধ্যাপক দ্বিজেন শর্মা। গিয়ে দেখি, ফুলটি প্রায় শুকিয়ে গেছে। কিন্তু গাছে আরও কয়েকটি কলি আছে। প্রায় প্রতিদিনই সতেজ ফুলের আশায় সেখানে যাই। অবশেষে দ্বিতীয় ফুলটি ফুটল ১৮ এপ্রিল। পরদিন আরেকটি। রাতে ফোটা সাদাটে রঙের এই ফুল সকালে সূর্যের আলোতেই বিবর্ণ হয়ে পড়ে। দুলিচাঁপার কথা দ্বিজেন শর্মার মুখে অনেকবার শুনেছি। কিন্তু ছবি দেখার সুযোগ হয়েছিল ২০০৮ সালের এপ্রিল মাসে। ফুল ফোটার সঠিক সময় পর্যবেক্ষণ করে মৌলভীবাজার জেলার বড়লেখা উপজেলার পাথারিয়া পাহাড় থেকে ছবি তোলা হয়। তারপর তিনি প্রথম আলোয় ‘বনে এমন ফুল ফুটেছে’ শিরোনামে একটি প্রতিবেদন লেখেন। আমাদের উদ্ভিদবিজ্ঞানে এই লেখাটি বিশেষ তাৎপর্যময়। কারণ, দীর্ঘদিন ধরে আমরা ম্যাগনোলিয়া হিসেবে একটি বিদেশি ফুল (উদয়পদ্ম) লালন করলেও দ্বিজেন শর্মার ব্যক্তিগত অনুসন্ধান ও এই লেখার মধ্য দিয়ে উন্মোচিত হলো একটি নতুন অধ্যায়ের। আমরা জানলাম যে আমাদেরও একটি সুদর্শন ও সুগন্ধি ম্যাগনোলিয়া আছে, যা দুলিচাঁপা নামে পরিচিত। এ বছর ফেব্রুয়ারি মাসে দুলিচাঁপার প্রিয় আবাস পাথারিয়া পাহাড়ে দ্বিজেন শর্মার নিজস্ব টিলায় (পারিবারিক মালিকানাসূত্রে প্রাপ্ত) প্রাকৃতিকভাবে জন্মানো চারটি গাছ দেখেছি।

২০০৭ সালের ১৪ জুলাই এ গাছের একটি চারা থিতু হয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বোটানিক্যাল গার্ডেনে। উৎসবমুখর পরিবেশেই সেদিন চারাটি রোপণ করা হয়। দ্বিজেন শর্মা পাথারিয়া পাহাড় থেকে দুলিচাঁপার দুটি চারা সংগ্রহ করে নিয়ে আসেন ঢাকায়। অন্যটি একই সময়ে রোপণ করা হয় রমনা পার্কে। পার্কের অরুণোদয় গেট থেকে ডান পাশের হাঁটা পথ দিয়ে খানিকটা এগোলেই গাছটি চোখে পড়ে। মাত্র চার বছরের ব্যবধানে বিশ্ববিদ্যালয়ের গাছটিতে প্রথম ফুল ফোটে ২০১০ সালের গ্রীষ্মে। প্রায় ছয় বছরের ব্যবধানে এ বছর ফুটেছে রমনা পার্কে। ঢাকায় আমাদের একমাত্র বুনো ম্যাগনোলিয়ার এ দুটি গাছই আছে। শেষ পর্যন্ত আমাদের বুনো ম্যাগনোলিয়ার অভিষেক ঘটল নগর উদ্যানে। এখন বিশ্বের দরবারে মাথা উঁচু করে বলতে পারব, আমাদেরও একটা ম্যাগনোলিয়া আছে।

দুলিচাঁপা (Magnolia pterocarpa) বেশ বড় এবং চিরসবুজ গাছ। মাথা গোলাকার, পাতা বড়, ২০ থেকে ৩৫ সেন্টিমিটার লম্বা, মাথার দিক চওড়া, বোঁটার দিকে ক্রমান্বয়ে সরু, পুরু ও মসৃণ, আগা ভোঁতা, বোঁটা খাটো। ডালের আগায় পুরুষ্টু বোঁটায় একক ফুল ফোটে। ফুল বড়, ১০ সেন্টিমিটার চওড়া, সাদা ও সুগন্ধি। পাপড়ি সংখ্যা ৬, ডিম্বাকৃতি ও পুরুষ্টু। ফলগুচ্ছ ১২ থেকে ১৮ সেন্টিমিটার লম্বা, ৪ থেকে ৬ সেন্টিমিটার চওড়া। ছোট আকৃতির এই ফলগুলোর আগা সামান্য লম্বা ও চোখা। সিলেট ছাড়া পার্বত্য চট্টগ্রামের প্রাকৃতিক বনেও থাকতে পারে। এরা Magnoliaceae পরিবারের সদস্য। চারা কিংবা কলমের মাধ্যমে এই গাছটি আমাদের চারপাশে ব্যাপক পরিমাণে রোপণ করা প্রয়োজন। এমনকি দুলিচাঁপার একটি অ্যাভিনিউও তৈরি করা যেতে পারে। তাতে আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্ম জানতে পারবে আমাদেরও একটি ম্যাগনোলিয়া আছে।
সৌন্দর্য ও সুগন্ধির জন্য ম্যাগনোলিয়া সারা বিশ্বেই ব্যাপক সমাদৃত ফুল।

বিদেশি ম্যাগনোলিয়া গ্রান্ডিফ্লোরা আমাদের দেশে উদয়পদ্ম বা হিমচাঁপা নামে পরিচিত। এখানে গাছটি বাড়ে খুব ধীরে, তা ছাড়া বংশবৃদ্ধিও ততটা সহজসাধ্য নয়। ম্যাগনোলিয়া নামে বিশেষ খ্যাতি থাকায় প্রায় সারা দেশেই ছড়িয়ে পড়েছে। বলধা গার্ডেনের সিবিলিতে প্রবেশপথের দুধারে এর বীথি আছে। সাধারণত শীতের দেশেই স্বাচ্ছন্দ্যে বাড়ে ও বাঁচে।

 

No photo description available.

Only logged in customers who have purchased this product may leave a review.

Reviews

There are no reviews yet.

SUNDARBANFARM

উদয়পদ্ম (4)

উদয়পদ্ম

৳ 0

%d bloggers like this: